স্বাস্থ্য ও জীবনধারা

২১ ফেব্রুয়ারি খুলছে অস্ট্রেলিয়ার সীমান্ত

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৫:৪৬, ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২২

২১ ফেব্রুয়ারি খুলছে অস্ট্রেলিয়ার সীমান্ত

সীমান্ত খুলে দিলেও টিকার ব্যাপারে কোনও শিথিলতা দেখাবে না দেশটি। ছবি : বিবিসি।

করোনা মহামারির কারণে অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশের ক্ষেত্রে প্রায় দুই বছর ধরে চলমান নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে যাচ্ছে দেশটি। আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যকর হবে দেশটির সীমান্ত খুলে দেওয়ার এ সিদ্ধান্ত। তবে টিকা নেওয়া ব্যক্তিরাই শুধু দেশটিতে প্রবেশের সুযোগ পাবেন। আজ সোমবার অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন এ ঘোষণা দিয়েছেন।

করোনা মহামারির কারণে সীমান্ত কঠোর নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রাখা গুটিকয় দেশের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া একটি। মহামারি মোকাবিলা করতে ২০২০ সালের মার্চ মাস থেকেই দেশটির সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া হয়। তখন থেকেই বিদেশি নাগরিক, বিদেশি শিক্ষার্থী বা দ্বৈত নাগরিকত্ব থাকা ব্যক্তিদের দেশটিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে কঠোর বিধিনিষেধ চলমান রয়েছে। এমনকি দেশটির নাগরিকদেরও দেশের বাইরে যাওয়ার ক্ষেত্রে কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে রাখা হয়েছে। গত বছরের ডিসেম্বরে শর্তসাপেক্ষে কিছুসংখ্যক বিদেশি শিক্ষার্থী ও বিদেশি নাগরিককে দেশটিতে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়। ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে নতুন সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে টিকা নেওয়া সাপেক্ষে সবার জন্যই দেশটির দ্বার খুলতে যাচ্ছে।

তবে সীমান্ত খুলে দিলেও টিকার ব্যাপারে কোনও শিথিলতা দেখাবে না দেশটি। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেছেন, 'সীমান্ত পুরোপুরি খুলে দেওয়ার পর অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশ করতে হলে টিকা নেওয়ার প্রমাণ দিতে হবে। এটিই নিয়ম। সবাইকেই তা মানতে হবে। আপনি যদি দুই ডোজ টিকা নিয়ে থাকেন, তাহলে আপনাকে আমরা (অস্ট্রেলিয়ায়) স্বাগত জানাই।'

যারা স্বাস্থ্যগত কারণে টিকা নেননি কিন্তু অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশ করতে চান, এমন ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে বিশেষ অনুমতির জন্য আবেদন করতে হবে। আবেদনের ভিত্তিতে অনুমতি মিললেও দেশে প্রবেশের আগে হোটেলে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

জন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্য অনুযায়ী, অস্ট্রেলিয়ায় মোট করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ২৭ লাখের বেশি এবং মৃত্যুর সংখ্যা ৪২৪৮। দেশটির প্রায় ৮০ শতাংশ নাগরিক পূর্ণ ডোজ টিকার আওতায় এসেছে। সূত্র : বিবিসি।